• ঢাকা, বাংলাদেশ সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:০৩ পূর্বাহ্ন

রাজশাহীর ১৬ কাউন্সিলর প্রাথীকে বিএনপি থেকে বহিস্কার

রিপোর্টার নাম:
আপডেট বুধবার, ৭ জুন, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক

দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (রাসিক) নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থী হওয়ায় ১৬ নেতাকে আজীবন বহিষ্কার করেছে বিএনপি। বুধবার (৭ জুন) রাতে বহিষ্কারের চিঠি নির্বাচনে অংশ নেওয়া প্রার্থীদের কাছে পাঠানো হয়েছে। বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর স্বাক্ষর করা চিঠিতে এই বহিষ্কারের কথা জানানো হয়। চিঠিতে বলা হয়েছে, দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় তাদের দল থেকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করা হলো। এর আগে গত ৪ জুন বিএনপি ঘরানার এসব প্রার্থীর বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করে কেন্দ্রে চিঠি পাঠিয়েছিলেন রাজশাহী মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট এরশাদ আলী ঈশা ও সদস্যসচিব মামুন-অর-রশিদ।
মহিলা দলের নেত্রী সামসুন নাহারের বহিস্কারাদেশের একটি চিঠি এই প্রতিবেদকের হাতে পৌছেছে। এই চিঠিতে বলা হয়েছে, আগামী ২১ জুন ২০২৩ অনুষ্ঠিতব্য রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন এর প্রহসনের নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে আপনি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার জন্য আপনাকে গত ৫ জুন ২০২৩ তারিখে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়। কিন্তু নির্ধারিত সময় অতিক্রান্ত হলেও আপনি কারণ দর্শানো নোটিশের জবাব দেননি-যা গুরুতর অসদাচরণ। নির্বাচনে প্রার্থীতা প্রত্যাহার না করে গত ১৫ বছর ধরে চলমান গণতান্ত্রিক আন্দোলনে অত্যাচারি শাসকগোষ্ঠীর দ্বারা যারা গুম-খুন ও পৈশাচিক নিপীড়নের শিকার হয়েছেন তাদের পরিবারসহ দেশের গণতন্ত্রকামী বিপুল জনগোষ্ঠীর আকাঙ্খার প্রতি আপনি বিশ^াসঘাতকতা করেছেন। দলীয় সিদ্ধান্ত ও নির্দেশনাকে এহেন অবজ্ঞা ও ঔদ্ধত্যের জন্য বিএনপি’র গঠনতন্ত্রের বিধান অনুযায়ী দলের প্রাথমিক সদস্য পদসহ সকল পর্যায়ের পদ থেকে নির্দেশক্রমে আপনাকে আজীবনের জন্য বহিস্কার করা হলো। গণতন্ত্র উদ্ধারের ইতিহাসে আপনার নাম একজন বেইমান, বিশ^াসঘাতক ও মীরজাফর হিসেবে উচ্চারিত হবে।

SAMSUN NAHAR
বহিষ্কৃতরা এসব কাউন্সিলর প্রার্থী হলেন-মহানগর বিএনপির রাজপাড়া থানা কমিটির সাবেক সহসভাপতি বদিউজ্জামান বদি, ১১ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সভাপতি আবু বকর কিনু, শাহমখদুম থানা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি মো. টুটুল, শাহমখদুম থানা বিএনপির সাবেক সহসাধারণ সম্পাদক আব্দুস সোবহান লিটন, নগর যুবদলের সাবেক সহ-সভাপতি বেলাল আহম্মেদ, নগর যুবদলের সাবেক শ্রম বিষয়ক সম্পাদক রনি হোসেন রুহুল, মহানগর যুবদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুজ্জামান টিটু, ২২ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মির্জা রিপন, বোয়ালিয়া থানা (পূর্ব) যুবদলের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক আলিফ আল মাহমুদ লুকেন, মহানগর বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি আনোয়ারুল আমিন আজব ও মতিহার থানা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি আশরাফুল হাসান বাচ্চু।
সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে অংশ নেওয়া বিএনপির পাঁচ নেত্রী হলেন- মহানগর মহিলা দলের সাংগঠনিক সম্পাদক মুসলিমা বেগম বেলী, মহানগর মহিলা দলের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক আলতাফুন নেসা পুতুল, মহানগর মহিলা দলের ১ নম্বর যুগ্ম সম্পাদক সামসুন নাহার, মহানগর মহিলা দলের সহ-সভাপতি শাহনাজ বেগম শিখা এবং মহানগর মহিলা দলের ৪ নম্বর যুগ্ম সম্পাদক আয়েশা খাতুন মুক্তি।
রাজশাহী মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক এরশাদ আলী ঈশা বলেন, দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে রাসিক নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় নাম ও পদবি উল্লেখসহ কেন্দ্র থেকে চিঠি চাওয়া হয়েছিল। এর প্রেক্ষিতে ১৬ জনের নাম ও পদবি উল্লেখসহ তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিতে কেন্দ্রে চিঠি পাঠানো হয়েছিল। তাদের আজীবন বহিষ্কার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরিতে আরো নিউজ