• ঢাকা, বাংলাদেশ রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:০৭ অপরাহ্ন

রাজশাহীতে বিশ্ব পরিবেশ দিবস উদযাপন  

রিপোর্টার নাম:
আপডেট সোমবার, ৫ জুন, ২০২৩

 

নিজস্ব প্রতিবেদক

সোমবার বিশ্ব পরিবেশ দিবস। প্রতিবছর বিশ্ব ব্যাপী নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে উদ্যাপিত হয় এই দিনটি। ‘প্লাস্টিক দূষণ সমাধানে- সামিল হই সকলে’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সারাদেশের মতো রাজশাহীতে দিবসটি নানা আয়োজনে উদ্যাপন করা হয়।

দিবসটি উদ্যাপনে জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় রাজশাহী পরিবেশ অধিদপ্তর জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে এক আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণীর আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার জি এস এম জাফরউল্লাহ্, এনডিসি।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বিভাগীয় কমিশনার বলেন, পরিবেশ আমাদের রক্ষা করতেই হবেই; তা না হলে আমাদের সব সাফল্য বিলীন হয়ে যাবে। পরিবেশ দূষণ প্রতিরোধের বিভিন্ন দিক থাকলেও এবার বিশ^ পরিবেশ সংস্থা প্লাস্টিক দূষণের উপর গুরুত্ব দিয়েছে। প্লাস্টিক যখন উৎপাদন শুরু হয়েছিল তখন এর ক্ষতিকর দিক পর্যালোচনা করে দেখা হয়নি। মানুষও তখন অতটা সচেতন ছিল না। ১৯৭৪ সাল থেকে মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধি করতে বিশ্ব পরিবেশ দিবস উদ্যাপিত হচ্ছে।

জি এস এম জাফরউল্লাহ্ বলেন, বিশে^র উন্নত দেশগুলোতে তারা প্লাস্টিক ব্যবহারের পরে যেখানে সেখানে ফেলে না; কিন্তু আমাদের দেশে আমরা যেখানে সেখানে ময়লা ফেলি, এটা আমরা স্বাধীনতা মনে করলেও আসলে এটা স্বাধীনতা নয়। আমাদের বুঝতে হবে স্বাধীনতা এবং স্বেচ্ছাচারিতা এক নয়।

তিনি বলেন, সিঙ্গাপুরের মতো আমাদের দেশে আইন করার সময় এসে গেছে। আমরা স্মার্ট দেশে রূপান্তর হতে যাচ্ছি। আমাদের চিন্তা-চেতনা আরও আধুনিক করতে হবে।

বিভাগীয় কমিশনার আরও বলেন, প্লাস্টিকের বিপরীতে সোনালি আঁশ পাট ও কাগজের উৎপাদন বৃদ্ধি করতে হবে। আমরা যদি পাট ও কাগজের ব্যবহার বৃদ্ধি করে প্লাস্টিকের ব্যবহার কমিয়ে ফেলতে পারি তা হলেই আজকের এই প্রতিপাদ্য সফল হবে। সুন্দর পরিবেশ গঠনে নিজেকে সচেতন হতে হবে এবং আশেপাশের সকলকে সচেতন করতে হবে।

পরিবেশের দিক থেকে রাজশাহী অন্যান্য শহরের তুলনায় অনেক এগিয়ে আছে উল্লেখ করে তিনি এই সফলতা ধরে রাখতে সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদের সভাপতিত্বে বক্তৃতা করেন রাজশাহী রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি নরেশ চাকমা, আরএমপির অতিরিক্ত কমিশনার সামসুন নাহার, রাজশাহী বিশ^বিদ্যলয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. আবদুল্লা আল মারুফ। এসময় বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিক্ষক-শিক্ষার্থী, রাজনীতিবিদ, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠান শেষে বিভাগীয় কমিশনার বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। এ সময় সকল শিক্ষার্থীদের একটি করে গাছ উপহার দেওয়া হয়।

এর আগে সকাল সাড়ে নয়’টায় রাজশাহী পর্যটন মোটেল হতে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে গিয়ে শেষ হয়। র‌্যালি শেষে বিভাগীয় কমিশনার বেলুন ও ফেস্টুন উড়িয়ে দিবসটির উদ্বোধন করেন। উদ্বোধন শেষে তিনি জেলা শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গনে একটি বকুল ফুলের চারা রোপণ করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরিতে আরো নিউজ