• ঢাকা, বাংলাদেশ সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৩০ পূর্বাহ্ন

নির্বাচন কমিশনার পরিচয়ে প্রার্থীর সাথে প্রতারণার দায়ে গ্রেপ্তার

রিপোর্টার নাম:
আপডেট শনিবার, ১৭ জুন, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজেকে নির্বাচন কমিশনার পরিচয় দিয়ে রাজশাহীর এক কাউন্সিলর প্রার্থীর কাছে টাকা দাবির অভিযোগে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ভুয়া ঐ নির্বাচন কমিশনারের নাম গিয়াস উদ্দিন (৪৫)। তিনি কক্সবাজার জেলার মহেশখালী থানার পুটিবিলা গ্রামের কবির আহাম্মদের ছেলে। রাজশাহী মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল শুক্রবার ঢাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। শনিবার দুপুরে রাজশাহী মহানগর পুলিশ কমিশনার আনিসুর রহমান আরএমপি সদর দপ্তরে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন। আরএমপি কমিশনার বলেন, গিয়াস উদ্দিন একজন পেশাদার প্রতারক। সে বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে প্রার্থীদের নম্বর সংগ্রহ করে। শুধু রাজশাহী নয় এর আগেও দেশের বিভিন্ন এলাকায় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সে প্রতারণার কাজ করেছে। ঢাকায় একটি আইটি ফার্মে কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে তার। প্রযুক্তিগত বিষয়ে তার ভালো দক্ষতা থাকায় সে এই সুযোগটাকে কাজে লাগিয়ে প্রতারণা করতো।
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আরমান আলীকে গত ৮ জুন সকালে কয়েকবার ফোন দেন গিয়াস উদ্দিন। কাউন্সিলর পদপ্রার্থী আরমান আলীর সঙ্গে নিজেকে নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার (অব:) মো: আহসান হাবিব খান পরিচয় দিয়ে নির্বাচন সংক্রান্ত নানান কথাবার্তা বলেন তিনি। এক পর্যায়ে তিনি কাউন্সিলর প্রার্থী আরমানের কাছে টাকা দাবী করেন এবং তাদের সাথে যোগাযোগ না করলে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ফলাফল তার বিরুদ্ধে যাবে বলে হুমকি প্রদান করে। আরমান আলী প্রতারণার বিষয়টি বুঝতে পেরে বিষয়টি নির্বাচন কর্মকর্তারদর অবগত করেন। ঐ দিনই এই ঘটনায় কাউন্সিলর পদপার্থী আরমান আলী ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার গোলাম মোস্তফা বোয়ালিয়া মডেল থানায় দুইটি সাধারণ ডায়েরি করেন।
এরই সূত্র ধরে প্রতারনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারে মাঠে নামে আরএমপির গোয়েন্দা বিভাগ। আরএমপি’র সাইবার ক্রাইম ইউনিটের সহযোগিতায় গোয়েন্দা পুলিশের দলটি দেশের বিভিন্ন প্রান্তে অভিযান শুরু করেন। অন্যদিকে, গ্রেপ্তার এড়াতে গিয়াস উদ্দিন একের পর এক তার অবস্থান পরিবর্তন করতে থাকে।
অবশেষে আরএমপি’র ডিবি পুলিশের ঐ টিম শুক্রবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকার শেখের টেক এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে সংঘবদ্ধচক্রের মূল হোতা গিয়াস উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করে রাজশাহীতে নিয়ে আসে। তার বিরুদ্ধে বোয়ালিয়া মডেল থানায় একটি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত গিয়াসের সহযোগীদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।
পুলিশ জানিয়েছে, গ্রেপ্তারকৃত গিয়াস উদ্দিনের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন থানায় প্রতারণাসহ অন্যান্য আইনে ৩টি মামলা রয়েছে।#


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরিতে আরো নিউজ