• ঢাকা, বাংলাদেশ সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:১২ পূর্বাহ্ন

সাঈদীর মরদেহকে কেন্দ্র করে তাণ্ডব চালিয়েছে জামায়াত-শিবির , তাই গায়েবি জানাজার অনুমতি দেয়া হবে না

রিপোর্টার নাম:
আপডেট মঙ্গলবার, ১৫ আগস্ট, ২০২৩

রাজশাহী সংবাদ ডেস্ক

একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর মরদেহকে কেন্দ্র করে তাণ্ডব চালিয়েছে জামায়াত-শিবির কর্মীরা। তাই তাদের উদ্যোগে গায়েবি জানাজার আয়োজনের অনুমতি দেয়া হবে না। মঙ্গলবার রাজধানীর মিন্টু রোডে দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর মৃত্যু এবং পরবর্তীতে জামায়াতে ইসলামীর প্রতিক্রিয়া সংক্রান্ত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক। খবর: নিউজবাংলা

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘সোমবার রাতে আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী হাসপাতালে মারা যান। তার মরদেহ নিয়ে জামায়াত-শিবির তাণ্ডব চালিয়েছে। পুলিশের ওপর আক্রমণসহ বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করেছে। জামাত শিবির কর্মীরা কয়েকজন সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তাদের ওপর হামলা করে।’

খন্দকার গোলাম ফারুক বলেন, ‘ফজরের নামাজের পর জামাত-শিবির নেতাকর্মীরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতাল এলাকা দখল করে নেয়। ফেসবুকে লাইভ দিয়ে সবাইকে সেখানে ডেকে আনে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের সরে যেতে বললে তারা তোয়াক্কা করেনি। পরে বাধ্য হয়ে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ সীমিত শক্তি প্রয়োগ করে।’

এক প্রশ্নের উত্তরে ডিএমপি কমিশনার বলেন, সোমবার রাতের হামলা ও ভাঙচুরের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে বুধবার তাদেরকে গায়েবি জানাজার অনুমতি দেয়া হবে না।

এর আগে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ জামায়াতের প্রচার ও মিডিয়া বিভাগের পরিচালক আশরাফুল আলম ইমন সোমবার রাত ২টা ৩৫ মিনিটে জানান, সাঈদীর কফিন পিরোজপুর যাচ্ছে। ১৬ তারিখ বাদ জোহর বায়তুল মোকাররমে জানাজা হবে।

খন্দকার গোলাম ফারুক বলেন, সারা রাত সাঈদীর মরদেহ হস্তান্তরকে কেন্দ্র করে জামায়াত-শিবির ও তার স্বজনরা নাটক করেছে এবং তাণ্ডব চালিয়েছে। তিনি মারা যাওয়ার পর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি তার দুই ছেলেকে জানায়। পরে তার দুই ছেলে মরদেহ পিরোজপুর নেওয়ার জন্য কারাগার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে।

তিনি বলেন, এর মধ্যে জেল কর্তৃপক্ষ পক্ষ মরদেহের ময়নাতদন্ত করার প্রস্তুতি সম্পূর্ণ করে। সেই অনুসারে ম্যাজিস্ট্রেট নিয়ে আসা হয়। ম্যাজিস্ট্রেট এসে মরদেহের সুরতহাল সম্পূর্ণ করেন। যখন ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ ঢাকা মেডিক্যালে নিয়ে যাওয়া হবে সেই মুহূর্তে তার ছেলেরা জোর দাবি জানায়, তারা ময়নাতদন্ত ছাড়া মরদেহ নিয়ে যেতে চায়। এ বিষয়ে জেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে তাদের অনেক সময় ক্ষেপণ হয়। পরে রাত একটা কি দেড়টার দিকে তারা জেল কর্তৃপক্ষের অনুমোদন পায়।

পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, কিন্তু যখন মরদেহ গাড়িতে করে নিয়ে যাওয়া শুরু হয়, তখন হাজার হাজার জামায়াত-শিবির লাশবাহী গাড়ির সামনে শোয়ে পড়ে। তারা কোনো মতে এই মরদেহ পিরোজপুরে নিয়ে যেতে দেবে না। এসময় লাশবাহী গাড়ির সঙ্গে থাকা পুলিশ অফিসার ও পুলিশ সদস্যদের ওপর হামলা করে জামায়াত-শিবির। সঙ্গে তারা গাড়ি ভাঙচুরও শুরু করে। এই হামলায় ডিসি রমনাসহ বেশ কয়েকজন সিনিয়র অফিসার আহত হন। তারা পুলিশের ৪-৫ টি গাড়ি ভাঙচুর করে এবং দুইটি মোটরসাইকেল আগুন ধরিয়ে দেয়। আমরা ধৈর্য সহকারে এই তান্ডব সহ্য করি যে তারা একটা মরদেহ নিয়ে যেতে চাচ্ছে নিয়ে যাক। তার পরও আমরা কোনো শক্তি প্রয়োগ করিনি।

ডিএমপি কমিশনার আরও বলেন, ফজরের নামাজের পরে তাদের আবারও অনুমতি দেয়া হলো জানাজা পড়ার। কিন্তু ফজরের নামাজের পরে তারা আমাদের অফিসারদের বের করে বিএসএমএমইউ দখলে নিয়ে নিলো। তারা মরদেহ পিরোজপুর নিতে দেবে না। এর মধ্যে তারা ফেসবুকে প্রচার করতে শুরু করলো সারা দেশ থেকে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের শাহবাগে আসার জন্য। তখন আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতি হওয়ার আশংকায় তাদের ওপরে আমরা অত্যন্ত সীমিত আকারে শক্তি প্রয়োগ করি। আমরা টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে বিএসএমএমইউ মুক্ত করে সাঈদীর মরদেহ পিরোজপুরে পাঠানোর ব্যবস্থা করি। এইটা সীমিত শক্তি প্রয়োগ করে করা হয়েছে, কারণ হাসপাতালে রোগীদের স্বাস্থ্যের বিষয় বিবেচনা করে প্রথম থেকে শক্তি প্রয়োগে আমরা বিরত ছিলাম কিন্তু তাদের তাণ্ডবে বাধ্য হয়ে আমরা সীমিত শক্তি প্রয়োগ করি। ইতমধ্যে পিরোজপুর মরদেহ চলে গেছে, দাফন কাজ সম্পূর্ণ করার প্রক্রিয়া চলমান আছে।

পরিস্থিতি যে এমন ভয়াবহ হবে পুলিশ তা আগে কেন জানতে পারেনি, এইটা গোয়েন্দা ব্যর্থতা কি না- জানতে চাইলে ডিএমপি কমিশনার বলেন, আমারা গোয়েন্দা তথ্য পেয়েছিলাম জামায়াত- শিবিরের নেতাকর্মীরা জড়ো হচ্ছেন। সাঈদীর দুই ছেলে প্রথম থেকে আমাদের আশ্বস্ত করেছিল আমাদের বাবার মরদেহ আমরা নিয়ে যাব কোন ধরনের সমস্যা হবে না আমরা যেভাবে বলবো এখানে সেভাবেই হবে। আমরা তাদের উপর বিশ্বাস করে প্রথম থেকে কোন প্রকার শক্তি প্রয়োগ করি নাই।

তিনি বলেন, যেহেতু তারা তাদের নেতার মরদহ নিয়ে যাওয়ার জন্য কেউবা মৃত্যুর সংবাদ শুনে আবার অনেকে মরদেহ দেখার জন্য এসেছেন তাই মানবিক কারণে আমরা প্রথম থেকে কোনো ধরনের অ্যাকশন নেইনি। কিন্তু জামায়াত-শিবির যে তাদের চরিত্রটা পাল্টাই নাই এটা তারা আবারও প্রমাণ করল। বিগত ২০১২-১৩ সালে তারা যেভাবে পুলিশকে জীবন্ত পুড়িয়ে মারা, হেলমেট দিয়ে পিটিয়ে পুলিশের মাথা থেতলিয়ে দেওয়ার মত চরিত্রের বহিঃপ্রকাশ তারা আবারও করল।

এর আগে গুজব ছড়ানো হয়েছে সাঈদীকে চাঁদে দেখা গেছে। তেমনি ভূমিকম্প নিয়ে সারা দেশে গুজব ছড়ানো হয়েছে এ ক্ষেত্রে ডিএমপির সাইবার সেল সক্রিয় আছে কিনা প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, আমাদের সাইবার ইউনিট সক্রিয় আছে। তারা যে বিভিন্ন গুজব ছড়াচ্ছিল সেই তত্ত্ব আমরা প্রতিনিয়ত পাচ্ছিলাম। এ ছাড়া সারা দেশ থেকে নেতাকর্মীদের জোর হওয়ার বিষয়ে যেসব প্রচারণা ফেসবুকে ছড়িয়েছিলো সেইসব তথ্যও আমরা পাচ্ছিলাম। সেই প্রেক্ষাপটে ভোররাতে আমাদের হালকা শক্তি প্রয়োগ করে তাদের ছাত্র ভঙ্গ করতে হয়েছে। কারণ সাইবার ওয়ার্ল্ডে তারা যেভাবে তৎপর ছিল আমাদের কাছে গোয়েন্দা তথ্য আসে যে তারা সারা দেশ থেকে নেতাকর্মীদের জোর করে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটাতে পারে।

জামায়াত-শিবির গায়েবানা জানাজা করবে বলে ঘোষণা দিয়েছে। এই গায়েবানা জানাজা কেন্দ্র করে ডিএমপির কোন প্রস্তুতি আছে কি না আর গোয়েন্দা তথ্য আছে কি না প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, তারা রাতে যে তাণ্ডব চালিয়েছে, তারপর গায়েবানা জানাজার করতে দেয়ার অনুমতি দেয়া হবে না। আমরা এই অনুমতি তাদের দেব না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরিতে আরো নিউজ