Home » অপরাধ ও আইন » পানামা পেপার্স কেলেঙ্কারি : ‘তথ্য ফাঁস নয় হ্যাক হয়েছে’
পানামা পেপার্স কেলেঙ্কারি : ‘তথ্য ফাঁস নয় হ্যাক হয়েছে’

পানামা পেপার্স কেলেঙ্কারি : ‘তথ্য ফাঁস নয় হ্যাক হয়েছে’

বাংলার কথা ডেস্ক:

পানামা পেপার্স কেলেঙ্কারির ঘটনায় ক্ষমতাধর ব্যক্তিদের অর্থ পাচার ও কর ফাঁকির বিষয়টি নিয়ে বিশ্বজুড়ে চলছে সমালোচনা। গণমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া এক কোটি পনেরো লাখ গোপন নথি হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে চুরি করা হয়েছে বলে দাবি করেছে ল’ ফার্ম মোসাক ফনসেকা।

পানামাভিত্তিক এ প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা র‌্যামন ফনসেকা বলেন, ‘আমাদের কার্যক্রম সম্পূর্ণ বৈধ। আমরা কোনো গোপন কাজ করি না। এটা ফাঁস নয়, হ্যাক।’ এদিকে অর্থ জমানোর অভিযোগ সারাসরি অস্বীকার করেছেন জনপ্রিয় অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন। আর পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ তার ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বিচার বিভাগীয় তদন্তের ঘোষণা দিয়েছেন। আর যুক্তরাজ্যের সরকারি সূত্রগুলো জানিয়েছে দেশের বাইরে প্রধানমন্ত্রীর নিজস্ব কোনো তহবিল নেই।
‘তথ্য ফাঁস নয়, হ্যাক হয়েছে’: ল’ ফার্ম মোসাক ফনসেকা দাবি করেছেন, বিদেশি সার্ভার থেকে তাদের প্রতিষ্ঠান হ্যাক করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে একটি ফৌজদারি অভিযোগ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। র?র‌্যমন অভিযোগ করে বলেন, এখানে কেউ হ্যাক করার বিষয়টি নিয়ে কথা বলছে না। অথচ অপরাধ হয়ে থাকলে এটিই হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, কোম্পানির যেসব ইমেইল ও তথ্য ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অব ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টস ও অন্যান্য গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে সেগুলোকে প্রসঙ্গের বাইরে ও ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠার পর থেকে তাদের কাছে থাকা কোনো তথ্য নষ্ট করা হয়নি এবং প্রতিষ্ঠানটি কাউকে কর ফাঁকি বা মুদ্রা পাচারে সহায়তা করেনি বলে দাবি ল’ ফার্মটির এ শীর্ষ কর্মকর্তার। খবর বিবিসির।
অমিতাভের অস্বীকার: চলতি সপ্তাহে গণমাধ্যমে আসা মোসাক ফনসেকার এসব নথি রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী, চোরাকারবারি, খেলোয়াড়, বলিউড তারকাসহ অনেকেরই গোমর ফাঁস করেছে। এর মধ্যে ভারতের জনপ্রিয় অভিনেতা অমিতাভ বচ্চনের বিরুদ্ধে অফশোর কোম্পানির মাধ্যমে কর ফাঁকি দেয়ার তথ্য প্রকাশ পেয়েছে। তবে বিদেশে অর্থ জমানোর অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তিনি।

দি ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের খবরে বলা হয়েছে, অমিতাভ ১৯৯৩ সালে অন্তত চারটি কোম্পানিতে নিযুক্ত হয়েছিলেন। যেগুলো ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জ এবং বাহামায় নিবন্ধিত। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বলছে, মন্তব্যের জন্য অনুরোধ সত্ত্বেও প্রাথমিকভাবে রাজি হননি বচ্চন, তবে তিনি একটি বিবৃতি দিয়ে কোনো ধরনের সম্পৃক্ততার অভিযোগ নাকচ করেছেন। বিবৃতিতে অমিতাভ বলেছেন, ‘আমি কখনোই এমন কোনো প্রতিষ্ঠানের পরিচালক ছিলাম না। সম্ভবত কেউ আমার নামের অপব্যবহার করেছে’। আইন অনুসারে সব ধরনের কর পরিশোধ করে থাকেন বলেও উল্লেখ করেছেন তিনি।

পত্রিকাটির খবরে আরো বলা হয়েছে, ২০০৫ সালে ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপে নিবন্ধিত একটি প্রতিষ্ঠানে অমিতাভের পুত্রবধূ ঐশ্বরিয়া রাই এবং তার পরিবারের সদস্যরা পরিচালক পদে ছিলেন। পরে ২০০৮ সালে ওই প্রতিষ্ঠান বিলুপ্ত হয়ে যায়। অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়া রাই’র গণমাধ্যম বিষয়ক উপদেষ্টা এসব দলিলপত্রের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি বলেছেন, এসব খবর সম্পূর্ণ অসত্য।
উল্লেখ্য, পানামা পেপার্স নামে পরিচিতি পাওয়া যে গোপন দলিলপত্র ফাঁস হয়েছে, সেখানে ৫০০ ভারতীয়র নাম উঠে এসেছে। ক্ষমতাধর রাজনীতিক থেকে শুরু করে নামকরা সেলিব্রেটিসহ অনেকের কর ফাঁকির গোপন তথ্য বেরিয়ে এসেছে এসব দলিলপত্রে। এতে দেখা গেছে চীন, যুক্তরাজ্য, পাকিস্তান, সৌদি আরবের মতো ক্ষমতাধর রাষ্ট্রের রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধান বা তাদের আত্মীয়রা অর্থ পাচারের সঙ্গে জড়িত। শুধু রাষ্ট্র বা সরকারপ্রধানরাই নন, বিশ্বখ্যাত ফুটবলার লিওনেল মেসি, মেক্সিকোর মাদকসম্রাট বা সন্ত্রাসী সংগঠন হিজবুল্লাহর সঙ্গে যোগাযোগের কারণে  যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কালো তালিকায় থাকা ব্যবসায়ীরাও বাদ যাননি।
‘দেশের বাইরে ক্যামেরনের তহবিল নেই’: পানামা পেপার্সের তথ্য অনুযায়ী ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের প্রয়াত বাবা কর ফাঁকি দিয়ে ৩০ বছর ধরে বিদেশে অর্থ রেখেছিলেন। লন্ডনের ডাউনিং স্ট্রিটে দেশটির প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অবশ্য এটিকে ক্যামেরনের পরিবারের সদস্যদের একান্ত বিষয় হিসেবে আখ্যা দিয়ে বলেছে, তারা বিদেশে বিনিয়োগ করবেন কি না, সেটা একান্তই তাদের নিজস্ব ব্যাপার। তবে সরকারি সূত্রগুলো জানিয়েছে দেশের বাইরে প্রধানমন্ত্রীর নিজস্ব কোনো তহবিল নেই।
তদন্ত কমিশন গঠনের ঘোষণা নওয়াজ শরীফের: পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ তার পরিবার পানামা কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িত আছে কিনা তা খতিয়ে দেখার জন্য উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন বিচার বিভাগীয় কমিশন গঠনের ঘোষণা দিয়েছেন। জাতির উদ্দেশ্য দেয়া ভাষণে এ ঘোষণা দেন তিনি। নওয়াজের মেয়ে এবং ছেলেদের বিদেশে কোম্পানি আছে বলে পানামা পেপার্সে অভিযোগ ওঠার পরিপ্রেক্ষিতে এ ঘোষণা দেন নওয়াজ। তিনি জানান, বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমটির প্রধান হবে সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের মেয়ে মরিয়ম, ছেলে হাসান ও হোসেনের নাম রয়েছে পানামা পেপার্সের তালিকায়।
উল্লেখ্য, বিশ্বের যেসব প্রতিষ্ঠান গোপনীয়তা রক্ষার জন্য বিখ্যাত, মোসাক ফনসেকা সেগুলোর একটি। অজানা সূত্র থেকে মোসাক ফনসেকার ১ কোটি ১৫ লাখ নথি জার্মান দৈনিক সুইডয়চে সাইটং’র হাতে আসে। পত্রিকাটি সেসব নথি অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা নিয়ে কাজ করা ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অব ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টসকে (আইসিআইজে) দেয়। ১৯৭৭ থেকে ২০১৫ সাল, প্রায় ৪০ বছরের এসব নথি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তার কিছু অংশ আইসিআইজে প্রকাশ করে। আগামী মে মাসে আরো নথি প্রকাশের ঘোষণা দিয়েছে সংস্থাটি।

 

বাংলার কথা/০৭ এপ্রিল, ২০১৬

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*