Home » উত্তরের খবর » হাসান আজিজুল হকের ৮০তম জন্মদিনে নাগরিক সংবর্ধনা
হাসান আজিজুল হকের ৮০তম জন্মদিনে নাগরিক সংবর্ধনা

হাসান আজিজুল হকের ৮০তম জন্মদিনে নাগরিক সংবর্ধনা

রাবি প্রতিনিধি ০
কথাসাহিত্যিক অধ্যাপক হাসান আজিজুল হকের ৮০তম জন্মবার্ষিকীতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) তাকে নাগরিক সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (২ ফেব্রুয়ারি) বিকেল চারটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ‘হাসান আজিজুল হক ৮০তম জন্মোৎসব উদযাপন পরিষদ’। অনুষ্ঠানে রাজনৈতিক, সাংষ্কৃতিক ব্যক্তিত্বসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও সাধারণ মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

 

অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, হাসান আজিজুল হক রাজশাহীর মতো একটি মফস্বল শহরে বসবাস করে এই শহরটিকে বাংলাদেশে চিনিয়েছেন। তিনি যদি ঢাকায় থাকতেন, তবে তিনি আরও আলোড়ন তুলতে পারতেন। আমরা রাজশাহীবাসি তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞ।

 

কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক বলেন, আজ আমাকে এমনভাবে তুলে ধরা হচ্ছে তাতে আমার বাক রুদ্ধ হয়ে আসছে। আজ যা বলা হয়েছে, তার আমি যোগ্য নই। আমি ছোট গ্রাম থেকে উঠে আসা সাধারণ একজন মানুষ। অতিসাধারণ হয়ে থাকতে চাই। আমার শুভাকাঙ্খীদের শ্রদ্ধা ও স্নেহভাজন সবাইকে ধন্যবাদ। বেঁচে যদি থাকি যেন বেঁচেই থাকি, মরে যেন বেঁচে না থাকি।

 

বাংলা একাডেমি পুরষ্কারজয়ী নাট্যজন অধ্যাপক মলয় ভৌমিক বলেন, আমাদের যেসব গুরুজন পথ দেখিয়েছেন তাদের মধ্যে হাসান আজিজুল হক একজন। তিনি যা লেখেন তা বিশ্বাস করেন এবং সাধারণের মধ্যে থাকেন। আমি প্রত্যাশা করি, তিনি আরও বহুসময় সাধারণের মধ্যে থাকবেন এবং আমাদের সাধারণ করে যাবেন।

 

অনুষ্ঠানে হাসান আজিজুল হককে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য ড. আনন্দ কুমার সাহা, অধ্যাপক ড. চৌধুরী মো. জাকারিয়া, একুশে পদক জয়ী প্রাবন্ধিক অধ্যাপক ড. সনৎকুমার সাহা, রাবির সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক আব্দুল খালেক ও অধ্যাপক ড. সাইদুর রহমান খান, প্রখ্যাত কবি অধ্যাপক জুলফিকার মতিন প্রমুখ।

 

এসময় লেখককে উত্তরীয় পরিয়ে দেন ভাষা সৈনিক মোশাররফ হোসেন আকুঞ্জি এবং জন্মদিবসের স্মরণিকা প্রদান করেন এমিরেটাস অধ্যাপক ড. অরুণ কুমার বসাক। এছাড়াও রাজশাহী ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও পেশাজীবী সংগঠন ও ব্যক্তিরা লেখককে শুভেচ্ছা জানান।

 

অনুষ্ঠানে লেখকের কন্যা সুলতানা শরমিন জাহান তোতন রবীন্দ্রসঙ্গীত ও দৌহিত্র অনির্বাণ হাসান অনিন্দ্য পিয়ানো বাদন পরিবেশন করেন। এছাড়াও বরেণ্য এই কথাসাহিত্যিকের বর্ণাঢ্য জীবন নিয়ে আহসান কবীর লিটন নির্মিত প্রামাণ্য চলচ্চিত্র ‘গল্পলোকের চিত্রকর’ প্রদর্শিত হয়।

 

বাংলার কথা/আলী ইউনুস হৃদয়/ফেব্রুয়ারি ০২, ২০১৯

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*