Home » উত্তরের খবর » বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েও সংশয়ে রুমকি!
বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েও সংশয়ে রুমকি!

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েও সংশয়ে রুমকি!

রাবি প্রতিনিধি ০
আমার মতো রুমকি যেন আর পৃথিবীতে না আসে’। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) প্রশাসনের নিকট বারবার আবেদন করেও সমাধান না পাওয়ায় এভাবেই হতাশার কথা বলছিলেন ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের আরবি বিভাগের শিক্ষার্থী রাজিয়া সুলতানা রুমকি। বৃহস্পতিবার (৩১ জানুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টায় প্রশাসন ভবনের সামনে রুমকি তাঁর শারীরিক প্রতিবন্ধকতার অসহায়ত্বের কথা বলেন।

 

রুমকির পা জোড়া জন্ম থেকে অচল। তিনি স্বাভাবিকভাবে হাঁটতেও পারেন না। রুমকির বাড়ি রাজশাহীর পাঠানপাড়ায়। রাজশাহী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং রাজশাহী সরকারি মহিলা কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন তিনি। কঠোর পরিশ্রম ও মা নাজনীন বেগমের অনুপ্রেরণায় ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে প্রতিবন্ধি কোটায় আরবি বিভাগে ভর্তির সুযোগ অর্জন করেন। কিন্তু আরবি বিভাগের শ্রেণিকক্ষ শহীদুল্লাহ্ কলা ভবনের তিন তলায় হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সম্ভবনা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। আর রুমকির জন্য তিন তলায় যাতায়াতের কোন ব্যবস্থাও নেই।

 

হুইল চেয়ারে বসে রুমকি বলেন, ‘আমার মতো রুমকি যেন পৃথিবীতে আর না আসে। শিক্ষক হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে রাবিতে ভর্তি হয়েছি। কিন্তু ক্লাসরুম তিনতলায় হওয়ায় আমার ক্লাস করা সম্ভব হবে না। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষও আমার জন্য কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।’

 

রুমকির মা নাজনীন বেগম জানান, ‘আমার কষ্ট কষ্টই রয়ে গেল। প্রশাসনের কাছে ঘুরে ঘুরেও কোনো ব্যবস্থা হচ্ছে না আমার মেয়ের পড়াশুনার সুবিধার জন্য। কর্তৃপক্ষের নিকট কোনো ফল পাওয়া যাচ্ছে না। এমতাবস্থায় যদি প্রশাসন কোন সিদ্ধান্ত না নেয়, তাহলে তো আমার মেয়ের লেখাপড়া থেমে যাবে।’

 

আরবি বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক আবু বকর সিদ্দীক বলেন, ‘আমাদের বিভাগে নিয়মিত ক্লাস না করলে টিকে থাকাও মুশকিল হয়ে পড়বে। বিশেষ করে আরবি ভাষা সাহিত্যের ক্লাস করতেই হবে। আবার তিন তলায় এসে এই শিক্ষার্থীর পক্ষে ক্লাস করাও সম্ভব না। এখন যদি উপাচার্য মহোদয় নিচতলায় যেসব বিভাগের ক্লাস হয়, সেগুলোতে তাকে স্থানান্তর করার ব্যবস্থা করেন তবেই সমস্যাটির সমাধান হতে পারে।’

 

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপচার্য অধ্যাপক ড. চৌধুরী মো. জাকারিয়ার কাছে রুমকিকে নিয়ে যাওয়া হলে তিনি জানান, ‘আরবি বিভাগের ক্লাসরুম নিচতলায় নিয়ে আসা সম্ভব নয় এবং এই প্রতিবন্ধি শিক্ষার্থীকে অন্য অনুষদে পাঠানোও সম্ভব নয়। এমতাবস্থায় তাকে তৃতীয় তলায় গিয়েই ক্লাস করতে হবে। নয়তো এখানে পড়াশুনা বাদ দেওয়া ছাড়া উপায় নেই। তারপরও আমরা দেখি আর কোনো ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হয় কিনা।’

 

এর আগে গত মঙ্গলবার রাবি শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি এহসান মাহফুজ তার ফেসবুকে উপাচার্য বরাবর মানবিক আবেদন জানিয়ে রুমকির জন্য সহায়তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্ট্যাটাস দেন। তারপর থেকে এই শিক্ষার্থীর সমস্যাটি নজরে আসে।বাংবিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েও সংশয়ে রুমকি!

 

বাংলার কথা/আলী ইউনুস হৃদয়/জানুয়ারি ৩১, ২০১৯

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*