Home » উত্তরের খবর » পদ্মায় বিজিবি-বিএসএফ যৌথ টহলের সিদ্ধান্ত
পদ্মায় বিজিবি-বিএসএফ যৌথ টহলের সিদ্ধান্ত

পদ্মায় বিজিবি-বিএসএফ যৌথ টহলের সিদ্ধান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক ০
সীমান্তে অবৈধ অস্ত্র, মাদক পাচার ও চোরাচালান প্রতিরোধসহ সব ধরনের অপরাধ দমনে এবার পদ্মা নদীতে যৌথ টহলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)। বৃহস্পতিবার ৯১৭ জানুয়ারি) রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের সাহেবনগর বিওপি (বর্ডার আউট পোস্ট) সংলগ্ন চর আষাড়িয়াদহ উচ্চ বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত পতাকা বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

 

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে সীমান্ত রেখায় হত্যা, মাদক, চোরাচালান, মানবপাচারসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। বৈঠকে সীমান্তে হত্যা, মাদক, অস্ত্রসহ অবৈধ পণ্য চোরাচালান বন্ধে বিজিবি-বিএসএফ কর্মকর্তারা ঐক্যমত পোষণ করেন। এসব অপরাধ নিয়ন্ত্রণে পদ্মায় যৌথ টহলের সিদ্ধান্ত নেয় দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী। তবে কবে থেকে টহল শুরু হবে তার সুনির্দিষ্ট দিনক্ষণ ঠিক হয়নি।

 

বৈঠকে বিজিবি জানায়, গত দুই বছরে সীমান্তে অস্ত্র ও চোরাচালান বেড়েছে। একই সঙ্গে গত বছরের শেষ দু’মাসে পাঁচজন বাংলাদেশী নাগরিক সীমান্তে নিহত হয়েছেন। এছাড়া নতুন করে রাজশাহী অঞ্চলের বিভিন্ন সীমান্ত এলাকা দিয়ে ইয়াবা আসা শুরু হয়েছে। চলতি মাসে ভারতীয় অস্ত্র পাচারকারীরা বিজিবিকে লক্ষ্য করে গুলিও ছুঁড়েছে। তাই সীমান্ত অপরাধ দমনে বৈঠকে দুই বাহিনীই আন্তরিকভাবে কাজ করার সিদ্ধান্ত নেয়।

 

বৈঠকে বিজিবির পক্ষে নেতৃত্ব দেন বিজিবি’র রাজশাহী সেক্টর কমান্ডার কর্নেল মুশফিকুর রহমান মাসুম। বিএসএফের পক্ষে নেতৃত্ব দেন বহরমপুর সেক্টরের ডিআইজি কুনাল মজুমদার। এছাড়া দ্বিপক্ষীয় ওই বৈঠকে রাজশাহী বিজিবি-১ ব্যাটালিয়নের কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কর্ণেল তাজুল ইসলামসহ ২০ সদস্য অংশ নেন। ভারতীয় সীমান্ত রক্ষা বাহিনী বিএসএফের পক্ষেও ২০ সদস্যের প্রতিনিধি দল অংশ নেন।

 

বাংলার কথা/জানুয়ারি ১৭, ২০১৯

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*