Home » উত্তরের খবর » রাজশাহীকে খুলনা বা গাজীপুর ভাবলে ভুল করবে সরকার : মিনু
রাজশাহীকে খুলনা বা গাজীপুর ভাবলে ভুল করবে সরকার : মিনু

রাজশাহীকে খুলনা বা গাজীপুর ভাবলে ভুল করবে সরকার : মিনু

নিজস্ব প্রতিবেদক ০
বিএনপি চেয়ারপাসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মিজানুর রহমান মিনু বলেছেন, ‘রাজশাহীকে খুলনা বা গাজীপুর ভাবলে ভুল করবে সরকার। রাজশাহীর মাটি শহীদ জিয়ার ঘাটি। রাজশাহী বিএনপির দুর্গ। ১৯৭৩ সালের নির্বাচনেও এখানে নৌকার ভরাডুবি হয়েছিল। সব নির্বাচনে বিএনপি বিজয়ী হয়েছে। আমাদের তিন স্তরের কর্মী আছে। আমরা নেতৃবন্দ জীবন বাজি রেখে, জীবন উৎসর্গ করে কারাগারে গিয়ে হলেও আমরা রাজশাহীবাসীর ভোটে আমাদের মেয়র প্রার্থী মোসেেদ্দক হোসেন বুলবুলকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করে আনবো।’

আজ ১২ জুলাই বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজশাহী মহানগর বিএনপি কার্যালয়ে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির মেয়র প্রার্থীর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক মিজানুর রহমান মিনু সমালোচনা করেন নির্বাচন কমিশন ও পুলিশ বাহিনীরও। বর্তমান নির্বাচন কমিশন সরকারের একটি অঙ্গ সংগঠনে পরিণত হয়েছে দাবি করে মিনু বলেন, অযোগ্য ও অথর্ব বর্তমান নির্বাচন কমিশন রাজশাহীতে নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করতে ১০০ ভাগ ব্যর্থ হয়েছে।

রাজশাহী মহানগর পুলিশের সমালোচনা করে মিনু বলেন, পুলিশ বিএনপির শতাধিক কর্মীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যাবার চেষ্টা করেছে। ২৯ কর্মীকে মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেপ্তার করেছে। নির্বাচন উপলক্ষে একটি বিশেষ এলাকার কতিপয় অতি উৎসাহী চিহ্নিত পুলিশ কর্মকর্তাকে রাজশাহীতে নিয়ে আসা হয়েছে দাবি করে বিএনপি নেতা মিনু বলেন, আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থীর পক্ষে তারা নির্বাচনী মাঠে কাজ করছে। সাধারণ পুলিশ সদস্যরা এর সাথে জড়িত নেই উল্লেখ করে মিনু বলেন, রাতের বেলায় বিএনপির মেয়র প্রার্থীর পোস্টার, ফেস্টুন নষ্ট ও ছিড়ে ফেলা হচ্ছে। সরকারি দলের কর্মীরা বিভিন্ন জায়গায় বিএনপি কর্মীদের হুমকি দিচ্ছে। আর এর সবই হচ্ছে পুলিশ বাহিনীর ওই বিশেষ কিছু কর্মকর্তার প্রত্যক্ষ ইন্ধনে।

সংবাদ সম্মেলনে মিনু বলেন, বিভিন্ন ওয়ার্ডে বিএনপি মেয়র প্রার্থীর পোস্টার, ব্যানার, ও ফেস্টুন সরকার দলীয় প্রার্থীর সন্ত্রাসীরা এবং অতি উৎসাহী পুলিশ সদস্যরা টাঙাতে দিচ্ছে এবং ছিড়ে ফেলে দিচ্ছে। ১৬নং ওয়ার্ডে বুলবুলের ফেস্টুন ছিড়ে ডাস্টবিনে ফেলে রেখেছে। ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে গিয়ে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর কর্মীরা ভোটারদের ধানের শীষে ভোট দিতে নিষেধ করছে। এমনকি ভোট কেন্দ্রে না যাওয়ার জন্য ভয় দেখাচ্ছে। সেইসাথে ভোট কেন্দ্রে গেলেও নৌকায় ভোট দেওয়ার জন্য চাপ দিচ্ছে। মিনু বলেন, রাজশাহী শান্তির শহর। কিন্তু সরকার দলীয় মেয়র প্রার্থী ও তার দোসরদের জন্য রাজশাহীর পরিবেশ ইতোমধ্যে গরম হতে শুরু করেছে।

মিনু বলেন, বিএনপি কখনো সন্ত্রাসী কার্যক্রম করে না। কারো পোস্টার ছিড়ে না, কারো জমি দখল করে না, টেন্ডার বাজি করে না, কমিশন খায় না। এগুলো সরকার দলের লোকজনের কাজ। তারা এ সকল কাজ করে টাকার পাহাড় গড়েছে। ইতোমধ্যে সরকার দলীয় প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন নির্বাচনী হলফনামা অতিক্রম করে অন্য খরর বাদে শুধুমাত্র কোটি কোটি টাকা খরচ করে পোস্টার, ব্যানার ও ফেস্টুন দিয়ে সারা সিটি ভরে দিয়েছে। অন্য মেয়র কিংবা কাউন্সিলর প্রার্থীদের ব্যানার ফেস্টুন টঙানোর কোনো জায়গা নেই। পুলিশ বাহিনী আওয়ামী লীগ প্রার্থীকে সরাসরি সহযোগিতা করছে। বিএনপি নেতা কর্মীদের গ্রেপ্তার করছে।

মিনু বলেন,  যতোই গ্রেপ্তার, মামলা ও হুমকি আসুক না কেন, বিএনপি নির্বাচনী মাঠে থাকবে এবং জীবন উৎসর্গ করে হলেও ২০দলীয় জোটের প্রার্থীকে বিজয়ী করবে। তিনি বলেন, রাসিক নির্বাচনে কোনোভাবেই আওয়ামী লীগকে ভোট কেন্দ্র দখল বা জাল ভোট প্রদান করতে দেওয়া হবে না। প্রতিটি কেন্দ্র কঠোরভাবে পাহারা দেওয়া হবে এবং ভোট গননা শেষ না হওয়া পর্যন্ত বিএনপি নেতাকর্মীরা কেন্দ্র পাহারা দেবে। পোলিং এজন্টেরা ভোট গননা করে ফলাফর ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত যে কোনো মূল্যে বুথে অবস্থান করবে।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী ও মহানগর বিএনপির সভাপতি মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন, বিএনপি প্রার্থীর প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট ও জেলা বিএনপির সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন তপুসহ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলার কথা/জুলাই ১২, ২০১৮