Home » অর্থনীতি » মেয়েদের ‘লুঙ্গি ড্যান্স’ ছেলেদের ‘রেস-থ্রি’ পছন্দের শীর্ষে
মেয়েদের ‘লুঙ্গি ড্যান্স’ ছেলেদের ‘রেস-থ্রি’ পছন্দের শীর্ষে

মেয়েদের ‘লুঙ্গি ড্যান্স’ ছেলেদের ‘রেস-থ্রি’ পছন্দের শীর্ষে

নিজস্ব প্রতিবেদক ০
লুঙ্গি ড্যান্স, তাকানো চটি, আর্জেন্টিনা, কলাপুরী, বেগী। এগুলো চায়না চটি স্যান্ডেলের নাম। এবারের ঈদে মেয়ে ক্রেতাদের নজর কাড়ছে এসব স্যান্ডেল। দেড়শ’ থেকে শুরু করে সাতশ’ টাকার মধ্যেই দাম এসব স্যান্ডেলের। এতো গেল মেয়েদের স্যান্ডেলের বহুরুপী নাম। বাদ নেই ছেলেরাও। গত বছর ‘বাহুবলী-২’ স্যান্ডেল ছিল ছেলেদের চাহিদার শীর্ষে। এবছর রেস-থ্রি, ক্যান্ডেল, গ্যাম্বল, ফিলা, ক্যাঙ্গারু নামে বাহারি সব নামের স্যান্ডেল রয়েছে তাদের পছন্দের তালিকায়। ১৫০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৫০০ টাকার মধ্যেই রাজশাহীতে পাওয়া যাচ্ছে এসব বাহারী স্যান্ডেল।

আর এক সপ্তাহও বাকি নেই ঈদের। শার্ট-প্যান্ট, পায়জামা-পাঞ্জাবি কিংবা শাড়ি-থ্রিপিস কেনা প্রায় শেষ। এখন পোশাকের সাথে মানানসই জুতা বা স্যান্ডেল কিনতে নানা বয়সী ক্রেতারা ভিড় করছেন জুতা-স্যান্ডেলের দোকানে। পোষাকের সাথে ম্যাচ করে জুতা-স্যান্ডেল পরা এখন শুধুমাত্র মেয়েদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই। নিজেকে আকর্ষনীয়ভাবে তুলে ধরতে ছেলেরা এখন তৎপর। আজ ১০ জুন রোববার রাজশাহীর সাহেব বাজার এলাকার ভুবনমোহন পার্ক সংলগ্ন স্যান্ডেল পট্টিসহ বিভিন্ন জুতার শোরুম ঘুরে দেখা গেছে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়।

সকল বয়সের ক্রেতাদের ভিড়ে জমে উঠেছে এই বেচাকেনা। বিক্রি বেশি হওয়াতে খুশি বিক্রেতারা। অন্যদিকে তুলনামূলক দামে জুতা স্যান্ডেল কিনতে পেরে খুশি ক্রেতারা। বিভিন্ন ব্র্যান্ডের শোরুমগুলোতে চড়া দাম জুতা স্যান্ডেলের। তাই সাধ্যের মধ্যে পরিবারের সদস্যদের জন্য জুতা-স্যান্ডেল কিনতে স্যান্ডেল পট্টিতে ভিড় করছেন ক্রেতারা।

নেহাল সুজ এর আল আমিন জানান, এবারের ঈদকে ঘিরে বেচাকেনা খুবই ভালো। ছোট বাচ্চা থেকে বুড়ো সকল বয়সের মানুষই আসছে চটি কেনার জন্য। চটির পাশাপাশি বয়স্ক মানুষের কিছু স্যান্ডেল বিক্রি হচ্ছে। তুলনামূলক কম দামে ভাল জুতা স্যান্ডেল পাচ্ছেন বলে ক্রেতারা এখানে আসছেন।

বাজেটের মধ্যে জুতা স্যান্ডেল কিনতে পারায় খুশি ক্রেতারা। মা নীলার সাথে মেয়ে নূপুর এসেছিলেন জুতা-স্যান্ডেল কেনার জন্য। নূপুর বলেন, হিল আমার পছন্দের জুতা। স্যান্ডেল পট্টিতে তুলনামূলক কম দামে বিভিন্ন মডেলের স্যান্ডেল পাওয়া যায়। বাটা বা এ্যাপেক্সে এতো ডিজাইনের জুতা পাওয়া যায় না। তাছাড়া সেখানে দামও বেশি। এজন্যই স্যান্ডেল কিনতে এখানে এসেছি।

 

বাটা, এ্যাপেক্স, লোটো ও হামকো’র মতো নামীদামী ব্র্যান্ডের জুতার চেয়েও স্যান্ডেলপট্টির চটি স্যান্ডেলের প্রতি ক্রেতাদের আগ্রহ বেশি। এসব নামীদামী ব্র্যান্ডের দোকানগুলোর চেয়ে অনেকগুনে ভিড় বেশি স্যান্ডেল পট্টিতে। এবার ঈদে লুঙ্গি ড্যান্স, তাকানো চটি, আর্জেন্টিনা, কলাপুরী, বেগী সহ চায়না চটি নজর কাড়ছে মেয়ে ক্রেতাদের। ১৫০ টাকা থেকে শুরু করে ৭০০ টাকার মধ্যেই সীমাবদ্ধ রয়েছে এ জুতা-স্যান্ডেলগুলোর মূল্য।

গত বছর ‘বাহুবলী-২’ স্যান্ডেল ছিল ছেলেদের চাহিদার শীর্ষে। এবছর রেস-থ্রি, ক্যান্ডেল, গ্যাম্বল, ফিলা, ক্যাঙ্গারুর বিশেষ চাহিদা রয়েছে বলে জানান বিক্রেতারা। সর্বনি¤্ন ১৫০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৫০০ টাকার মধ্যেই পাওয়া যাচ্ছে এই বাহারী চটিগুলো।

রাজশাহী সরকারি নিউ ডিগ্রী কলেজের ছাত্র নাফিস ইসলাম বলেন, রাজশাহীতে প্রায় দুই বছর ধরে আছি। আমার যতো জুতা স্যান্ডেল সব সাহেব বাজার স্যান্ডেল পট্টি থেকেই কিনি। বলতে গেলে এটি রাজশাহীর সবচেয়ে বড় জুতা-স্যান্ডেলের মার্কেট। এখানে কম দামে যত মডেলের জুতা-স্যান্ডেল পাওয়া যায়, তা বাটা বা এ্যাপেক্সের শোরুমে পাওয়া যায় না।

সাহেববাজার স্যান্ডেলপট্টি ছাড়াও রাজশাহী নগরীর লক্ষীপুর, বাটারমোড়, নিউমার্কেট, উপশহর নিউমার্কেট, আলুপট্টি, বিনোদপুরসহ বিভিন্ন মোড়ে জুতা-স্যান্ডেলের পাশাপাশি ফুটপাতে বসেছে অস্থায়ী জুতা-স্যান্ডেলের দোকান। এসব দোকানেও ভিড় বেড়েছে ক্রেতাদের। এসব দোকানে কম দামে জুতা কিনতে পেরে যেমন খুশি ক্রেতারা, তেমনি বিক্রি বেশি হওয়ায় খুশি বিক্রেতারাও।

ছবি : মিলন শেখ

বাংলার কথা/জুন ১০, ২০১৮

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*