Home » উত্তরের খবর » গাইবান্ধার চরে মাধ্যমিক স্কুলে দুর্বৃত্তদের আগুন
গাইবান্ধার চরে মাধ্যমিক স্কুলে দুর্বৃত্তদের আগুন

গাইবান্ধার চরে মাধ্যমিক স্কুলে দুর্বৃত্তদের আগুন

গাইবান্ধা প্রতিনিধি ০

দুর্বৃত্তদের দেওয়া আগুনে গাইবান্ধার সদর উপজেলার ব্রহ্মপুত্র নদী চরাঞ্চলের কুন্দেরপাড়ায় গণ উন্নয়ন একাডেমির (হাইস্কুল) অফিস কক্ষসহ ৭টি ক্লাস রুম পুড়ে গেছে। আগুনে আসবাবপত্র ,শিক্ষা সরঞ্জাম, শিক্ষার্থীদের ২০ হাজার সার্টিফিকেট ভস্মীভূত হয়, এতে প্রায় কোটি টাকার সম্পদ পুড়ে গেছে।

খবর পেয়ে শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ছামছুল আজম, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আলীয়া জাহান ফেরদৌসী, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম মেহেদী হাসান, কামারজানি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সালামসহ সরকারী কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ১২টার দিকে আগুনের ঘটনা ঘটে, বলে জানিয়েছেন গণ উন্নয়ন একাডেমি হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক আসাদুজ্জামান। তিনি জানান, বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা গণ উন্নয়ন কেন্দ্রের অর্থায়নে ২০০৩ সালে একাডেমিটি প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে একাডেমিতে ৫৯৭ জন ছাত্র-ছাত্রী অধ্যয়নরত।

বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ১২টার দিকে হঠাৎ করে স্কুলে আগুন জ্বলে উঠে। পরে স্থানীয় লোকজন আগুন নেভাতে চেষ্টা চালিয়েও ব্যর্থ হয়। আগুনে অফিস কক্ষসহ ৭টি কক্ষ, আসবাবপত্র ,শিক্ষা সরঞ্জাম পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এছাড়া কক্ষের আলমারিতে রাখা শিক্ষার্থীদের ১২ বছরের অন্তত ২০ হাজার স্কুল সার্টিফিকেটও পুড়ে গেছে।

প্রধান শিক্ষক আসাদুজ্জামান জানান, সম্প্রতি স্থানীয় কিছু লোকজন স্কুলের কার্যক্রমে বাধা দিয়ে আসছিলো। এছাড়া এলাকায় কিছু ব্যক্তি আরেকটি স্কুল প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা করছিলো। তাছাড়া একাডেমির পাশের এলাকায় মাদক, জুয়া, মদ ও যাত্রার নামে নগ্ন নাচ গানের আসর চলতো। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার কুন্দেরপাড়া স্কুলের মাঠে এক সুধী সমাবেশ হয়। এসব কারণে দুর্বৃত্তরা ক্ষিপ্ত হয়ে হাইস্কুলে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে।

কামারজানি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম জানান, ব্রহ্মপুত্র নদী চরাঞ্চলের কুন্দেরপাড়ায় প্রতিষ্ঠিত গণ উন্নয়ন একাডেমি হাইস্কুলটি সুষ্ঠভাবে পরিচালিত হয়ে আসছিলো। নারী শিক্ষার মান ও আবাসিক সুবিধা থাকায় চরাঞ্চলের শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছে হাইস্কুলটি। কিন্তু কে বা কারা শত্রুতা করে আগুন দেয়।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম মেহেদী হাসান জানান, খবর পেয়ে পুড়ে যাওয়া হাইস্কুল পরিদর্শন করা হয়েছে। আগুনের ঘটনা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এছাড়া দুর্বৃত্তদের সনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা হবে।
বাংলার কথা/জুয়েল মিয়া/২৭ জানুয়ারী,২০১৭