Today January 20, 2018, 8:58 am |
Home » অপরাধ ও আইন » রাজশাহীতে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের ভিডিও

রাজশাহীতে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের ভিডিও

নিজস্ব প্রতিবেদক ০
রাজশাহী নগরীরর একটি ইন্স্যুরেন্স কোম্পানীর কার্যালয়ে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ করে ভিডিও ধারণের ঘটনায় দু’জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। রবিবার রাতে তাদের গ্রেপ্তারের পর আজ ১১ ডিসেম্বর সোমবার দুপুরে তাদের আদালতের নির্দেশে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো, জয়পুরহাট জেলার সতিঘাটা এলাকার আব্দুল রহিম মোল্লার ছেলে সোহেল রানা ওরফে একরাম (২৫) ও বাগমারা উপজেলার শ্রীপুর এলাকার মানু কাজির ছেলে জয়নাল আবেদীন (৩৬)।

এদের মধ্যে জয়নাল আবেদীন প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানীর লিমিটেডের রাজশাহী রিজিওনাল কো-অডিনেটর ও ইসলামী তাকাফুল বীমা ডিভিশনের রাজশাহীর ইনচার্জ পদে কর্মরত আছেন। একরাম নগরীর অলোকার মোড়স্থ প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানীর লিমিটেডের রাজশাহী রিজিওনাল অফিসের একটি কক্ষ ভাড়া নিয়ে বসবাস করেন।

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ছয় বছর আগে একরামের সাথে ওই কলেজ ছাত্রীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। বিয়ের প্রলোভন দিয়ে একরাম ওই ছাত্রীকে নিয়ে নগরীতে ঘুরে বেড়াতো। বিষয়টি ওই কলেজ ছাত্রীর পরিবারের লোকজন জানতে পেরে একরামকে নানাভাবে সতর্ক করে দেয়। একপর্যায়ে স্থানীয় এক ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কাছেও মেয়েটির পরিবারের লোকজন একরামের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে।

এ নিয়ে গত ১০ আগষ্ট একরামকে ওই ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে শাসানো হয়। পাশাপাশি তার নিকট থেকে মুচলেকা নেওয়া হয়। তাতে সাক্ষী হিসেবে স্বাক্ষর করেন ইন্স্যুরেন্স কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন। এরপর থেকে একরাম ওই কলেজ ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ইন্স্যুরেন্স অফিসে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে এবং তা মোবাইল ফোনে ভিডিও ধারণ করে।

ধর্ষণের ভিডিও একরাম পরবর্তীতে তার বন্ধু ইন্স্যুরেন্স কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীনকে দেখায় ও তার মোবাইলে কপি করে রাখে। বিষয়টি গত শনিবার মেয়ের পরিবারের লোকজন জানতে পারলে বোয়ালিয়া মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে।

অভিযোগটি তদন্ত করতে গিয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বোয়ালিয়া মডেল থানার এসআই নাছির আহম্মেদ ঘটনার সত্যতা পান এবং গোপনে সেই ভিডিও ক্লিপটি সংগ্রহ করেন। এরপর রবিবার রাতে ধর্ষণের অভিযোগে একরাম ও ধর্ষণের ঘটনায় সহায়তাকারী হিসেবে ইন্স্যুরেন্স কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বোয়ালিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমান উল্লাহ জানান, কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ ও সেই দৃশ্য ভিডিও ধারণের ঘটনায় দু’জনকে গ্রেপ্তার করে সোমবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ওই ঘটনায় মেয়েটির মেয়ের মা বাদি হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মেয়েটির স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়েছে।

বাংলার কথা/ডিসেম্বর ১১, ২০১৭

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: ড. প্রদীপ কুমার পান্ডে
সম্পাদক: শ.ম সাজু
সহকারী সম্পাদক (রংপুর বিভাগ): তিতাস আলম
২০৯ (৩য় তলা), বোয়ালিয়া থানার মোড়, কুমারপাড়া, রাজশাহী। ফোন: ০১৯২৭-৩৬২৩৭৩, ই-মেইল: banglarkotha.news@gmail.com