Today November 24, 2017, 11:09 pm |
Home » উত্তরের খবর » রংপুরে মুক্তিযোদ্ধার তালিকা নিয়ে অপপ্রচার- সংবাদ সম্মেলন

রংপুরে মুক্তিযোদ্ধার তালিকা নিয়ে অপপ্রচার- সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক ০

রংপুর মহানগর মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটি ৩২৮ জন আবেদনকারীর মধ্যে প্রাথমিকভাবে সর্বসম্মতিক্রমে ২২ জনকে মনোনিত, দালিলিক ও সাক্ষ্য প্রমাণ সঠিক না থাকায় ৯৭ জনের আবেদন নামঞ্জুর ও ১৮জনের দ্বিধাবিভক্তি তালিকা করা হয়।

এবং ১৯১ জন উপস্থিত না হওয়ায় তাদের আবেদন বাতিল করা হয়। মনোনিত এই তালিকা নিয়ে একটি মহল অপপ্রচার চালাচ্ছে। আজ শনিবার দুপুরে মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড আযোজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে মহানগর যাচাই বাছাই কমিটির সভাপতি সদরুল আলম লিখিত বক্তব্যে বলেন, ৬ নং সেক্টরের যুদ্ধকালীন তথাকথীত কোম্পানী কমান্ডার এবং এফ, এফ, এর জে, এল প্রশিক্ষক মুজিব ক্যাম্প ও বৃহত্তর রংপুরের সেকেন্ড ইন কমান্ডার মো: মোজাফ্ফর হোসেন চাঁদ ও অপিল উদ্দিন আহমেদ মহানগর মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাইয়ে অর্থের লেনদেন ও অনিয়মের যে অভিযোগ উত্থাপন করে তারা সংগঠনের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন করছেন।

তিনি বলেন রংপুর মহানগর যাচাই-বাছাই কমিটি জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল (জামুকা) এর নির্দেশিকা অনুসরণ করে যাচাই-বাছাই সম্পন্ন করেছে। যেখানে অমুক্তিযোদ্ধাদের অন্তর্ভূক্ত হওয়ার কোন সুযোগ ছিল না। জামুকার নির্দেশনা অনুযায়ী তিন ধরণের তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে।

সাত সদস্য বিশিষ্ট রংপুর মহানগর যাচাই-বাছাই কমিটির প্রতিটি সদস্যের যাচাই-বাছাই আওতাভূক্ত মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যাপারে নিজস্ব মতামত প্রদানের অধিকার ছিল। কমিটির কোন একজন সদস্য দ্বিমত পোষন করলে তা দ্বিধাবিভক্ত সিদ্ধান্ত হিসেবে গৃহীত হয়। অতএব এখানে অর্থ লেনদেনের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা হওয়ার কোন সুযোগ ছিল না।

তিনি আরো বলেন সাত সদস্য বিশিষ্ট যাচাই-বাছাই কমিটির সদস্য জামুকা প্রতিনিধি সিরাজুল ইসলাম যিনি বর্তমান কমিটির বিপক্ষে কথা বলছেন। অথচ তিনি ২২ জনের গৃহীত তালিকার বিষয়ে তখন আপত্তি করেন নি। আপত্তি করলে তা দ্বিধাবিভক্তি তালিকায় যেত। এরপর যখন পৃথক পৃথক তালিকা প্রস্তুত করা হয় তখন তিনি ২২ জনের তালিকায় দ্বিমত আছে লিখে কমিটির সভাপতি, সদস্য সচিব (অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক) ও অন্যান্য সদস্যদের সামনে সই করেন। পরবর্তীতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে গিয়ে নিজেই দ্বিমত আছে কথাটি একটানে কেটে দিয়ে পুণরায় স্বাক্ষর করে মনোনিত ২২ জনের বৈধতা দেন।

তিনি আরো বলেন যাচাই-বাছাইয়ে কেউ যদি সংক্ষুদ্ধ হয়ে থাকেন তার জামুকায় আপীল করার সুযোগ আছে। কেননা জামুকাই সমন্বয় করে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার রাখে। তা না করে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের নামে অপ্রচার চালানো হচ্ছে।
বাংলার কথা/তিতাস আলম/২০ মে, ২০১৭

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: ড. প্রদীপ কুমার পান্ডে
সম্পাদক: শ.ম সাজু
সহকারী সম্পাদক (রংপুর বিভাগ): তিতাস আলম
২০৯ (৩য় তলা), বোয়ালিয়া থানার মোড়, কুমারপাড়া, রাজশাহী। ফোন: ০১৯২৭-৩৬২৩৭৩, ই-মেইল: banglarkotha.news@gmail.com