Today December 12, 2017, 11:43 pm |
Home » অপরাধ ও আইন » ভুয়া পরীক্ষার্থী দিয়ে ইবতেদায়ি পরীক্ষা!

ভুয়া পরীক্ষার্থী দিয়ে ইবতেদায়ি পরীক্ষা!

লালমনিরহাট প্রতিনিধি ০
লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় চলমান প্রাথমিক সমাপনী ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় একটি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসার হয়ে অংশ নেওয়া ৩জন পরীক্ষার্থীই ভুয়া বলে অভিযোগ উঠেছে। এসব পরীক্ষার্থীর মধ্যে দু’জন সদ্য সমাপ্ত অষ্টম শ্রেণীর জেডিসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। অপরজন পড়ছে একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণীতে।

অভিযোগ থেকে জানা যায়, উপজেলার মধ্যগড্ডিমারী বটতলা স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি  মাদ্রাসার হয়ে গড্ডিমারী দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে রিফাত জাহান, আমেনা খাতুন ও শ্যামলী খাতুন নামের তিন শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে রিফাত জাহান ও আমেনা খাতুন চলতি বছর উপজেলার মৌলভী আবুল হাশেম আহমেদ সিনিয়র মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থী হিসেবে জেডিসি (জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট) পরীক্ষায়  অংশ নিয়েছে। তাদের জেডিসি পরীক্ষায় রোল নং ছিল যথাক্রমে ২৩৮৭২৩ ও ২৩৮৬৮০। অপর শিক্ষার্থী শ্যামলী খাতুন পড়ছে হাতীবান্ধা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ট শ্রেণীতে। তার ক্লাস রোল-১৭ (গোলাপ শাখা)। এরপরও তারা ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার্থী হিসেবে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের ডিআরভুক্ত হয়েছে। সেই সুবাধে তারা গড্ডিমারী বটতলা স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসার হয়ে পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে।

২০ নভেম্বর সোমবার সরেজমিন ওই কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, ষষ্ট শ্রেণীর শিক্ষার্থী শ্যামলী খাতুন ১০ নম্বর কক্ষে অন্যান্য শিক্ষার্থীদের সাথে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে উত্তরপত্র লিখছে। এসময় শ্যামলী জানায়, গত বছর একটি বিদ্যালয় থেকে সে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে বর্তমানে হাতীবান্ধা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের পড়ছে। কিন্তু মধ্যগড্ডিমারী বটতলা স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসায় তার এক আত্মীয় থাকার কারণে এবছর ইবতেদায়ি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। তবে জেডিসি ফলপ্রার্থী রিফাত জাহান ও আমেনা খাতুন গড্ডিমারী বটতলা স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসার হয়ে প্রথম পরীক্ষায় অংশ নিলেও সোমবার দ্বিতীয় পরীক্ষায় অনুপস্থিত ছিল বলে কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

এ ব্যাপারে গড্ডিমারী দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব আতোয়ার হোসেন বলেন, ওই তিন শিক্ষার্থীর সবাই প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের ডিআরভুক্ত পরীক্ষার্থী। সে কারণে তারা পরীক্ষায় অংশ নেয়।

বিষয়টি নিয়ে গড্ডিমারী বটতলা ইবতেদায়ি মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক জাহেদুল ইসলামের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি। তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই মাদ্রাসার এক সহকারী শিক্ষক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

হাতীবান্ধা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের দায়িত্বে থাকা সহকারি শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আযাদ বলেন, ‘বিষয়টি হাতীবান্ধার ইউএন স্যারের কাছে শুনেছি। ওই মাদ্রাসার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

হাতীবান্ধা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম জানান, আমি ওই পরীক্ষা কেন্দ্রে গিয়ে ঘটনা জেনে এসেছি। এ ব্যাপারে ওই মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাংলার কথা/ইলিয়াস বসুুনিয়া পবন/নভেম্বর ২১, ২০১৭

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: ড. প্রদীপ কুমার পান্ডে
সম্পাদক: শ.ম সাজু
সহকারী সম্পাদক (রংপুর বিভাগ): তিতাস আলম
২০৯ (৩য় তলা), বোয়ালিয়া থানার মোড়, কুমারপাড়া, রাজশাহী। ফোন: ০১৯২৭-৩৬২৩৭৩, ই-মেইল: banglarkotha.news@gmail.com