Today May 27, 2018, 9:39 pm |
Home » উত্তরের খবর » বদলে যাচ্ছে রাজশাহীর পদ্মা পাড়

বদলে যাচ্ছে রাজশাহীর পদ্মা পাড়

নিজস্ব প্রতিবেদক ০
বদলে যাচ্ছে রাজশাহী মহানগরীর পশ্চিমাঞ্চলের পদ্মা পাড়। নগরীর বুলনপুর থেকে পশ্চিমে পবা উপজেলার নবগঙ্গা পর্যন্ত পাঁচ কিলোমিটার এলাকার পদ্মা পাড় বাঁধানো হচ্ছে কংক্রিটের ব্লক দিয়ে। ফলে ওই এলাকার মানুষ এখন আর প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে ভাঙ্গন আতঙ্কে ভুগবে না।

পানি উন্নয়ন বোর্ড ‘পদ্মা নদীর ভাঙ্গন থেকে রাজশাহী মহানগরীর অন্তর্ভুক্ত বুলনপুর থেকে সোনাইকান্দি পর্যন্ত সংরক্ষণ’ প্রকল্পের আওতায় পদ্মা পাড়ের পাঁচ কিলোমিটার কংক্রিটের ব্লক দিয়ে বাঁধাই করছে। প্রথম ধাপে পাঁচটি প্যাকেজে গত বছরের জুনে বুলনপুর থেকে হাড়ুপুর পর্যন্ত দুই হাজার ৬৫০ মিটার নদীর তীর রক্ষার কাজ শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে ৯০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। আগামী ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যেই কাজটি শেষ হবে বলে আশা করছেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলীরা। প্রথম ধাপের কাজ শেষে আসছে শুষ্ক মৌসুমে হাড়ুপুর থেকে পবার সোনাইকান্দি পর্যন্ত দুই হাজার ২৫৫ মিটার নদীর তীর রক্ষার কাজ শুরু হবে। কাজ শেষ হলে পদ্মাপাড়ের প্রায় পাঁচ কিলোমিটারের বেশি এলাকার স্থায়ী সংরক্ষণ হবে।

 

হাড়ুপুর এলাকার বাসিন্দা আব্বাস আলী (৬০) বলেন, গত ৩০ বছরে এলাকার প্রায় আড়াই হাজার বাড়ি বিলীন হয়ে গেছে পদ্মা গর্ভে। তাই এলাকায় কেউ পাকাবাড়ি নির্মাণ করতো না। কিন্তু বাঁধের নির্মাণ কাজ শুরু হওয়ার পর এলাকার যার যার সামর্থ্য আছে, তারা সবাই পাকাবাড়ি নির্মাণের কাজ শুরু করেছে। বাঁধের আগে তারা সবাই ভাঙ্গন আতঙ্কে বর্ষাকাল পার করতেন। এখন তাদের সেই দুশ্চিন্তায় কেটে গেছে। এখন এলাকার জমির দামও বেড়ে গেছে।

গত রোববার সকালে হাড়ুপুর এলাকায় বাঁধাইয়ের কাজ পরিদর্শনে যান রাজশাহী সদর আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা। তিনি জানান, পুরো প্রকল্পের ব্যয় ২৬৮ কোটি ৭০ লাখ টাকা। এর মধ্যে প্রায় ৩১ কোটি টাকা দিয়ে পদ্মা নদী ড্রেজিংও করা হবে। এর ফলে রাজশাহী শহরের পাশে নদীতে সারাবছর পানির প্রবাহ থাকবে। নদী তীর রক্ষা ও ড্রেজিংয়ের পর ওই এলাকায় পাকা সড়ক নির্মাণ করে দেয়ারও উদ্যোগ নেয়া হবে।

 

বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, উন্নয়ন তখনই বোঝা যাবে, যখন এর সুফল মানুষ ভোগ করবে। এখন এই বাঁধের কারণে এলাকার মানুষ পাকাবাড়ি করা শুরু করেছে। এটা দিয়েই উন্নয়ন বোঝা যায়। বোঝা যাচ্ছে মানুষের জীবনযাত্রার মানের উন্নয়ন ঘটছে। এই প্রকল্পের কাজ শেষ করে তিনি বুলনপুর থেকে প্রথমে পূর্ব দিকে নগরীর তালাইমারী শহীদ মিনার পর্যন্ত এবং এরপর পূর্বে কাটাখালি এলাকা পর্যন্ত তিনি পদ্মার পাড় বাঁধাই করতে চান। এতে রাজশাহী শহর পুরোপুরি সংরক্ষিত হবে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড রাজশাহীর নির্বাহী প্রকৌশলী মোখলেসুর রহমান জানান, এই বাঁধের পাশেই বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্ক নির্মাণ হচ্ছে। সেখানে বহুতল ভবন হবে। যে স্থানটিকে পার্কের জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে, সেখানে আগে ভবন করার কথা কেউ ভাবতেও পারতেন না। এই বাঁধের কারণেই তা সম্ভব হয়েছে। বাঁধের কাজ শতভাগ শেষ হওয়ার পর এলাকাটির নান্দনিক সৌন্দর্য্য পাবে বলে মনে করেন তিনি।

বাংলার কথা/এপ্রিল ২৪, ২০১৮

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: ড. প্রদীপ কুমার পান্ডে
সম্পাদক: শ.ম সাজু
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মোঃ হাবিবুর রহমান
২০৯ (৩য় তলা), বোয়ালিয়া থানার মোড়, কুমারপাড়া, রাজশাহী। ফোন: ০১৯২৭-৩৬২৩৭৩, ই-মেইল: banglarkotha.news@gmail.com