Today December 13, 2017, 2:00 am |
Home » অপরাধ ও আইন » তালাক ঠেকাতে রাবি ছাত্রীকে অপহরণ

তালাক ঠেকাতে রাবি ছাত্রীকে অপহরণ

নিজস্ব  প্রতিবেদক ০
তালাক ঠেকানোর জন্যই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের ছাত্রীকে অপহরণ করেছিলেন তার স্বামী। স্ত্রীকে জোরপূর্বক ডিভোর্স প্রত্যাহার করানোর জন্য তাকে তুলে নিয়ে ঢাকায় কাজী অফিসেও নিয়েছিলেন তিনি। সেখান থেকেই ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করে পুলিশ।

আজ ১৯ নভেম্বর রোববার সকাল সাড়ে ১১টায় রাজশাহী মহানগর পুলিশ কমিশনার আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে নগর পুলিশ কমিশান মাহবুবুর রহমান জানান, ঢাকা থেকে উদ্ধারের পর ওই ছাত্রী ও তার গ্রেফতারকৃত স্বামী সোহেল রানাকে শনিবার রাতে রাজশাহীতে আনা হয়।

তিনি আরো জানান, এ ঘটনায় এ পর্যন্ত তিনজনকে আটক করা হয়েছে। তারা হলেন ওই ছাত্রীর স্বামী সোহেল রানা, সোহেলের বাবা জয়নাল আবেদীন এবং মাইক্রোবাসের চালক জাহিদুল ইসলাম।

রোববার দুপুরে রাজশাহী মহানগর পুলিশ সদর দফরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন পুলিশ কমিশনার মাহবুবর রহমান বলেন, অপহরণকারী ওই ছাত্রীর স্বামী হলেও তাকে জোর করে উঠিয়ে নিয়ে যাওয়া অপরাধ। মামলাটি একেবারে প্রাথমিক পর্যায়ে তদন্তে আছে, তাই ঘটনাটি অপহরণ না ওই ছাত্রী স্বেচ্ছায় গেছে তা এই মুহূর্তে বলা সম্ভব হচ্ছে না।

পুলিশ কমিশনার জানান, এক বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। কিছুদিন আগে স্বামীকে ডিভোর্স দেন ওই ছাত্রী। ডিভোর্স অফিসিয়ালি কার্যকর হওয়ার আগে বিচ্ছেদ ঠেকাতে স্ত্রীকে শুক্রবার ক্যাম্পাস থেকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যান তার স্বামী সোহেল রানা।

তিনি জানান, উদ্ধারকাজ পরিচলানার জন্য পুলিশের বিশেষ টিম গঠন করা হয়। পুলিশ সদর দপ্তরের সহায়তায় মতিহার থানা পুলিশ অপহৃত ছাত্রীকে ঢাকার মোহাম্মদপুর থানার শেখেরটেক রায়েরবাজার এলাকায় একটি কাজী অফিস থেকে উদ্ধার করে। সেখান থেকে তার স্বামী সোহেলকেও আটক করা হয়।

মহানগর পুলিশের মুখপাত্র ইফতে খায়ের আলম জানান, মামলায় গ্রেফতারকৃত সোহেল রানা ও মাইক্রোবাসের চালক জাহিদুল ইসলামের রোবাবর বিকেলে আদালত একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বাংলা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের এক ছাত্রী তাপসী রাবেয়া আবাসিক হল থেকে বের হয়েছিলেন পরীক্ষা দেওয়ার জন্য। হলের গেট থেকে ৫০ গজ এগোতেই তাকে জোর করে তার প্রাক্তণ স্বামী একটি মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়। পরে ওই ছাত্রীর সন্ধান চেয়ে বিকাল ৪টা থেকে উপাচার্যেও বাসভবন ঘেরাও কর্মসূচি পালন করে শিক্ষার্থীরা।

ওইদিন সন্ধ্যায় মতিহার থানায় ওই ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে অপহরণ মামলা দায়ের করেন। মামলায় সাবেক স্বামী সোহেল রানাসহ ৬ জনকে আসামি করা হয়। পরে রাতে ওই ছাত্রীর শ্বশুড় জয়নাল আবেদীনকে পত্মীতলা থেকে আটক করা হয়।

এছাড়া শনিবার ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকার একটি কাজী অফিস থেকে অপহৃত ছাত্রীকে উদ্ধার করে পুলিশ। এসময় অভিযুক্ত সাবেক স্বামী সোহেল রানাকেও গ্রেফতার করা হয়। এর আগে ঢাকা থেকে মাইক্রোবাস চালককে আটক করে পুলিশ।

বাংলার কথা/নভেম্বর ১৯, ২০১৭

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: ড. প্রদীপ কুমার পান্ডে
সম্পাদক: শ.ম সাজু
সহকারী সম্পাদক (রংপুর বিভাগ): তিতাস আলম
২০৯ (৩য় তলা), বোয়ালিয়া থানার মোড়, কুমারপাড়া, রাজশাহী। ফোন: ০১৯২৭-৩৬২৩৭৩, ই-মেইল: banglarkotha.news@gmail.com