Today November 25, 2017, 7:48 am |
Home » তাজা খবর » জবিতে দরপত্র নিয়ে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ, সাংবাদিকসহ আহত ২

জবিতে দরপত্র নিয়ে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ, সাংবাদিকসহ আহত ২

বাংলার কথা ডেস্ক ০

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) দরপত্র জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে সাংবাদিকসহ দুজন আহত হয়েছে। আজ রোববার দুপুর ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ভবনের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

আহত সাংবাদিকের নাম আবদুল ওয়াহাব। তিনি অনলাইন নিউজ পোর্টাল আমাদের সময় ডটকমের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি।

প্রত্যক্ষদর্শী ও ছাত্রলীগ সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৭-১৮ সালের ডায়েরি, ওয়াল ক্যালেন্ডার ও ডেস্ক ক্যালেন্ডার মুদ্রণ, বাঁধাই ও সরবরাহ সংক্রান্ত দরপত্র জমা দেওয়ার নির্ধারিত সময় ছিল আজ।

প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সকালে তানভির রহমান, হারুন-অর-রশিদ, আনিসুর রহমান শিশির, জহির রায়হান আগুনের নেতৃত্বে একটি পক্ষ দরপত্র জমা দেয়। এরপর নেতারা চলে গেলেও তাদের অনুসারীরা থেকে যায়, যাতে অন্য কেউ দরপত্র জমা দিতে না পারে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও ছাত্রলীগ সূত্রে আরো জানা যায়, বেলা পৌনে ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম সিরাজুল ইসলামের অনুসারীরা দরপত্র জমা দিতে যায়। এ সময় অবস্থান নেওয়া অন্যপক্ষের অনুসারীরা তাদের ওপর হামলা চালায়। হামলায় অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সপ্তম ব্যাচের শিক্ষার্থী নাদিম। সংঘর্ষের ছবি তুলতে গেলে অনলাইন নিউজ পোর্টাল আমাদের সময় ডটকমের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি এবং গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী আবদুল ওহাব মারধরের স্বীকার হন। তাঁকে মাটিতে ফেলে বুকে ও পিঠে লাথি মারতে দেখা যায়। একপর্যায়ে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারে নেওয়া হয়। পরে অবস্থা খারাপ হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাম্বুলেন্সে করে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা। সংঘর্ষে আহত আরেক শিক্ষার্থী হলেন আরিফুল ইসলাম। তিনি ইতিহাস বিভাগের ১০ ম ব্যাচের ছাত্র।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রক্টর ড. নূর মোহাম্মাদ এবলেন, পরিস্থিতি এখন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। আহত আবদুল ওহাবকে ঢাকা মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে। আহতদের পক্ষ হতে লিখিত অভিযোগ পেলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘আমার লোকজন যখন দরপত্র জমা দিতে যায়, তখন একটি গ্রুপ দরপত্র ছিনিয়ে নিয়ে ফেলে দেয়।’ অন্য পক্ষের লোকজনের নাম বলতে চাননি তিনি।

এ ছাড়া অপর পক্ষের নেতৃত্বদানকারী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

বাংলার কথা/সাইফ/জুলাই ১৬, ২০১৭

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: ড. প্রদীপ কুমার পান্ডে
সম্পাদক: শ.ম সাজু
সহকারী সম্পাদক (রংপুর বিভাগ): তিতাস আলম
২০৯ (৩য় তলা), বোয়ালিয়া থানার মোড়, কুমারপাড়া, রাজশাহী। ফোন: ০১৯২৭-৩৬২৩৭৩, ই-মেইল: banglarkotha.news@gmail.com