Today August 22, 2017, 1:01 pm |
Home » অপরাধ ও আইন » গোদাগাড়ীতে ভাতাভোগী ৩০ ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা

গোদাগাড়ীতে ভাতাভোগী ৩০ ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা

গোদাগাড়ী (রাজশাহী) সংবাদদাতা ০
রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই শেষে ৩০ জন ভাতাভোগী মুক্তিযোদ্ধা ভুয়া প্রমাণিত হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, গত ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত গেজেটভুক্ত ১৩০ জন, অনলাইনে আবেদনকৃত ২৪৯ জন ও সরাসরি আবেদনকৃত ২৯ জনের সাক্ষাৎকার গ্রহণ করে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটি। এরপর গেজেটভুক্ত ১৩০জনের মধ্যে ১০০জন মুক্তিযোদ্ধাকে বৈধ করা হয় এবং ৩০জনকে ভুয়া হিসেবে চিহ্নিত করে তাদের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে বাতিল ঘোষণা করা হয়। অনলাইন ও সাধারণভাবে আবেদনকৃত ২৭৮ জনের মধ্যে ২৬ জনকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

ভাতাভোগী যাদের ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে, তারা হলেন-হরিশংকরপুর গ্রামের মৃত জাবেদ আলীর ছেলে আবেদ আলী, চর বয়ারমারী গ্রামের মৃত নকিমুদ্দিনের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক, শ্রীমন্তপুর গ্রামের বেলায়েত আলীর ছেলে নূর মোহাম্মদ মিয়া, চর বয়ারমারী গ্রামের সাবেদ আলী মন্ডলের ছেলে আব্দুল হাকিম, ভাটোপাড়া গ্রামের মৃত নুর মোহাম্মদ মোল্লার ছেলে তোজাম্মেল হক, সিধনা গ্রামের মৃত জয়নাল বিশ্বাসের ছেলে মৃত মাইনুল হক, বেনীপুর গ্রামের তামেজ উদ্দিন মন্ডলের ছেলে আহম্মদ আলী, নাজিরপুর গ্রামের মৃত লেওয়াজি মন্ডলের ছেলে মৃত আব্দুর রহমান, শ্রীমন্তপুর গ্রামের মৃত মকবুল হোসেনের ছেলে মৃত নজরুল ইসলাম, বুজরুকপাড়া গ্রামের মৃত মাসিয়াতুল্লা মন্ডলের ছেলে নজরুল ইসলাম, বিদিরপুর গ্রামের মৃত দরবারি মন্ডলের মৃত মোসলেম উদ্দিন, উজানপাড়া গ্রামের মৃত ফসিউদ্দিন সরকারের ছেলে আলতাব হোসেন, বড়গাছি গ্রামের মৃত ইয়ার মোহাম্মদ সরকারের ছেলে মৃত আব্দুল কুদ্দুস সরকার, পিরিজপুর গ্রামের মৃত আজাহার হোসেনের ছেলে শাহজাহান, কাশিমপুর গ্রামের মৃত জনাব আলীর ছেলে নাজমুল হক, মোল্লাপাড়া গ্রামের মৃত যোগেন্দ্রনাথের ছেলে বীরেন্দ্রনাথ, মান্ডইল গ্রামের মৃত তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে আব্দুল লতিফ, হরিণবিস্কা গ্রামের মজিবুর রহমানের ছেলে আবু মুসা, সৈয়দপুর গ্রামের মৃত হাজী আমিনুদ্দীন সরকারের মৃত সাবেদ আলী, আলতাব হোসেন ও সুলতান সরকার, মালিগাছা গ্রামের আলতাব হোসেনের স্ত্রী সুফিয়া বেগম, কদমশহর গ্রামের মৃত সেরাজ উদ্দিনের ছেলে মৃত জুলমত আলী, ভগবন্তপুর গ্রামের মৃত আমানত আলী বিশ্বাসের ছেলে আনোয়ারুল ইসলাম, বারুইপাড়া গ্রামের মৃত বেলাল উদ্দিনের ছেলে আফজাল হোসেন, রসুলপুর গ্রামের মৃত সাজ্জাদ আলীর ছেলে রুহুল আমিন, বালিয়াঘাট্টা গ্রামের মৃত ফজলুর রহমানের ছেলে আবুল কাশেম এবং ওবিয়া বাসুদেবপুর গ্রামের মৃত ইসলাম মন্ডলের ছেলে গোলাম মোস্তফা।

বাতিল হওয়া মুক্তিযোদ্ধারা এতোদিন সরকারি ভাতা ও আনুষঙ্গিক সুবিধা গ্রহণ করে আসছিলেন। মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটির সদস্য-সচিব ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জাহিদ নেওয়াজ বলেন, বৈধ কাগজপত্র ও যাচাই-বাছাই কমিটির সকল সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই-বাছাই কাজ শেষ হয়েছে। বাতিল হয়ে যাওয়া মুক্তিযোদ্ধারা ফলাফল ঘোষণার ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে আপিল করতে পারবেন।

বাংলার কথা/ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৭

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানাযায়, গত ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত গেজেটভুক্ত ১৩০ জন অনলাইনে, ২৪৯ জন সরাসরি আবেদনকৃত ২৯ জনের সাক্ষাৎকার গ্রহণ করে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটি। গেজেটভুক্ত ১৩০ জনের মধ্যে ১০০ জন মুক্তিযোদ্ধাকে বৈধ করা হয় এবং ৩০ জনকে বাতিল হিসেবে ঘোষণা করা হয়। অনলাইন ও সাধারণভাবে আবেদনকৃত ২৭৮ জনের মধ্যে ২৬ জনকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

বাতিলকৃত মুক্তিযোদ্ধা হচ্ছে,  উপজেলার হরিশংকরপুর গ্রামের মৃত জাবেদ আলীর ছেলে আবেদ আলী, চর বয়ারমারী গ্রামের মৃত নকিমুদ্দিনের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক, শ্রীমন্তপুর গ্রামের বেলায়েত আলীর ছেলে নূর মোহাম্মদ মিয়া, চর বয়ারমারী গ্রামের সাবেদ আলী মন্ডলের ছেলে আব্দুল হাকিম, ভাটোপাড়া গ্রামের মৃত নুর মোহাম্মদ মোল্লার ছেলে তোজাম্মেল হক, সিধনা গ্রামের মৃত জয়নাল বিশ্বাসের ছেলে মৃত মাইনুল হক, বেনীপুর গ্রামের তামেজ উদ্দিন মন্ডলের ছেলে আহম্মদ আলী, নাজিরপুর গ্রামের মৃত লেওয়াজি মন্ডলের ছেলে মৃত আব্দুর রহমান, শ্রীমন্তপুর গ্রামের মৃত মকবুল হোসেনের ছেলে মৃত নজরুল ইসলাম, বুজরুকপাড়া গ্রামের মৃত মাসিয়াতুল্লা মন্ডলের ছেলে নজরুল ইসলাম, বিদিরপুর গ্রামের মৃত দরবারি মন্ডলের মৃত মোসলেম উদ্দিন, উজানপাড়া গ্রামের মৃত ফসিউদ্দিন সরকারের ছেলে আলতাব হোসেন, বড়গাছি গ্রামের মৃত ইয়ার মোহাম্মদ সরকারের ছেলে মৃত আব্দুল কুদ্দুস সরকার, পিরিজপুর গ্রামের মৃত আজাহার হোসেনের ছেলে শাহজাহান, কাশিমপুর গ্রামের মৃত জনাব আলীর ছেলে নাজমুল হক, মোল্লাপাড়া গ্রামের মৃত যোগেন্দ্রনাথের ছেলে বীরেন্দ্রনাথ, মান্ডইল গ্রামের মৃত তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে আব্দুল লতিফ, হরিণবিস্কা গ্রামের মজিবুর রহমানের ছেলে আবু মুসা, সৈয়দপুর গ্রামের মৃত হাজী আমিনুদ্দীন সরকারের মৃত সাবেদ আলী, আলতাব হোসেন ও সুলতান সরকার, মালিগাছা গ্রামের আলতাব হোসেনের স্ত্রী সুফিয়া বেগম, কদমশহর গ্রামের মৃত সেরাজ উদ্দিনের ছেলে মৃত জুলমত আলী, ভগবন্তপুর গ্রামের মৃত আমানত আলী বিশ্বাসের ছেলে আনোয়ারুল ইসলাম, বারুইপাড়া গ্রামের মৃত বেলাল উদ্দিনের ছেলে আফজাল হোসেন, রসুলপুর গ্রামের মৃত সাজ্জাদ আলীর ছেলে রুহুল আমিন, বালিয়াঘাট্টা গ্রামের মৃত ফজলুর রহমানের ছেলে আবুল কাশেম এবং ওবিয়া বাসুদেবপুর গ্রামের মৃত ইসলাম মন্ডলের ছেলে গোলাম মোস্তফা।

বাতিল হওয়া মুক্তিযোদ্ধারা ভাতা গ্রহণ করে আসছিল। এদিকে বৈধ কাগজ থাকার পরেও অনেক মুক্তিযোদ্ধা বৈধ তালিকায় তাদের নাম না ওঠায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

সাধারণ মুক্তিযোদ্ধা অভিযোগ করেন কয়েকজন বিতর্কিত ও অভিযুক্ত মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটির কাছে বৈধতা পেয়েছে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রশিদ বলেন, ভারতীয় নাগরিক আব্দুর রহিমের বিরুদ্ধে যাচাই-বাছাই কমিটির কাছে লাল মুক্তিবার্তায় তালিকাভুক্ত ১০ জন মুক্তিযোদ্ধা অভিযোগ করলেও এই মুক্তিযোদ্ধা বৈধতা পেয়েছে।

এ প্রসঙ্গে মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটির সদস্য-সচিব ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জাহিদ নেওয়াজ বলেন, বৈধ কাগজপত্র ও যাচাই-বাছাই কমিটির সকল সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই-বাছাই কাজ সম্পন্ন করা হয়। বাতিল হয়ে যাওয়া মুক্তিযোদ্ধারা ফলাফল ঘোষণার ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে আপিল করতে পারবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: ড. প্রদীপ কুমার পান্ডে
সম্পাদক: শ.ম সাজু
সহকারী সম্পাদক (রংপুর বিভাগ): তিতাস আলম
২০৯ (৩য় তলা), বোয়ালিয়া থানার মোড়, কুমারপাড়া, রাজশাহী। ফোন: ০১৯২৭-৩৬২৩৭৩, ই-মেইল: banglarkotha.news@gmail.com